May 29, 2020

জুড়ীতে ইউএনও অসীম চন্দ্র বনিকের প্রচেষ্ঠায় শতবর্ষী কামিনীগঞ্জ বাজারটি প্রাণ ফিরে পেয়েছে

মাহফুজ শাকিল, জুড়ী থেকে ফিরে: মৌলভীবাজারের জুড়ীর একসময়ের ঐতিহ্যবাহী বাজার ছিল কামিনীগঞ্জ বাজারটি। সেই বাজারে ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগম সবসময় লেগেই থাকতো। কিন্তুু কালের বিবর্তনে শতবর্ষী ওই বাজারটি বিভিন্ন কারণে তাঁর ঐতিহ্য হারায়। বর্তমানে বিলীন হওয়া সেই বাজারটি আবারো প্রাণ ফিরে পেয়েছে। এর নেপথ্যে কাজ করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) অসীম চন্দ্র বনিক। বর্তমানে তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠায় বাজারে শৃংখলা আগের মতো স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে এসেছে। সরেজমিন ঘুরে তার বাস্তব চিত্র দেখা গেছে।

সূত্রে জানা গেছে, জুড়ী নদীর পাশে গড়ে ওঠা জুড়ীর কামিনীগঞ্জ বাজার একসময় ছিল জুড়ীর ঐতিহাসিক ও প্রধান বাজার। এই বাজারের অনেক ঐতিহ্য ও জৌলুস ছিল। কিন্তুু তৎকালীন সময়ে বাজারের ইজারাদার ও একটি মহলের নিষ্ঠুরতার কারণে বাজারের সকল ব্যবসায়ীরা বাজার থেকে মুখ থুবড়ে নিয়েছিল। বিভিন্ন সময়ে উদ্যোগ নেওয়া হলেও বাজারটি স্বাভাবিক ও প্রাণবন্ত করা যায়নি। যার ফলে বাজার জনশুন্যে হয়ে পড়ে এবং ব্যবসায়ীরা উপায়ন্তর না দেখে রাস্তার পাশে অবৈধভাবে বাজার গড়ে তুলে। এই বাজার থেকে সরকার অনেক রাজস্ব পেত। বর্তমানে কামিনীগঞ্জ বাজারে গরুর হাটটি ৭০ লক্ষ ১ হাজার টাকা সরকারি ইজারামূল্য ইজারা নেন জায়ফরনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাছুম রেজা। সেই বাজারের পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ বাজার ও বাজারের প্রবেশদ্বারে স্থায়ী দোকানগুলো উপজেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপে অপসারণ করায় বাজারটি এখন অতীতের জৌলুস ও ইতিহাস ফিরে পেয়েছে।

বাজারটির গতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে ও সৌন্দর্য বর্ধনে ৫ মে কামিনীগঞ্জ বাজারের প্রবেশদ্বারে সড়ক ও জনপথের জায়গা দখল করে গড়ে ওঠা ২০টি স্থায়ী স্থাপনা উচ্ছেদ করেন ইউএনও অসীম চন্দ্র বনিক। দীর্ঘ দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে বাজারের প্রবেশ মুখে অবৈধভাবে দোকানপাট তৈরি করে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছিলো। এতে রাস্তার জায়গা সংকুচিত হয়ে পড়ে। এমনকি পথচারীদের চলাচলেও ছিল চরম দূর্ভোগ। দীর্ঘ সময়ে জায়গাটি দখলদারমুক্ত করা সম্ভব হয়ে উঠেনি। কোন ধরণের শক্তি প্রয়োগ ছাড়াই ওই স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করে উপজেলা প্রশাসন। এ কাজে সার্বিক সহযোগিতা করেন জুড়ী থানার অফিসার ইনর্চাজ জাহাঙ্গীর আলম সরদার ও জায়ফরনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাছুম রেজা। এর আগে গত ১৫ এপ্রিল সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী করোনার সংক্রমণ রোধে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে রাস্তার দু’পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ বাজারগুলো উচ্ছেদ করে উপজেলা প্রশাসন। অভিযান পরিচালনা করে প্রশাসন নির্ধারিত কামিনীগঞ্জ বাজারের পাশে খোলা জায়গায় বাজারটি স্থানান্তর করা হয়।

উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নে অবস্থিত কামিনীগঞ্জ বাজারের রাস্তার দু’পাশে গড়ে ওঠা অবৈধ কাঁচাবাজার, সবজি ও মাছ বাজার থাকার কারণে দীর্ঘদিন থেকে তীব্র যানজট লেগেই থাকতো। কোনো গাড়ী প্রবেশ করতে পারতো না। এতে মানুষদের চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হতো। বর্তমানে করোনা পরিস্থিেিত এই বাজারে কোনভাবেই সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা যাচ্ছিলো না। করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি ছিল বেশি। সরকার থেকে নির্দেশনা আসে খোলা জায়গায় বাজার নিতে হবে। ব্যবসায়ীরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাজার নিয়ে বসবে। অবশেষে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরীনের নির্দেশে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অসীম চন্দ্র বনিক ওই অবৈধ বাজারগুলো উচ্ছেদ করেন। এসময় ইউএনও অসীম চন্দ্র বণিক এবং জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ জাহাঙ্গীর আলম সরদার বাজারের ব্যবসায়ীদের দেশের বর্তমান পরিস্থিতি বুঝিয়ে বলেন এবং করোনার সংক্রমণ ঝুঁকি এড়াতে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করেন এবং বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা বললে ব্যবসায়ীরা সেখান থেকে বাজার সরাতে রাজি হয়। পরে তাদের সরকার নির্ধারিত কামিনীগঞ্জ বাজারের গরুর হাটের পাশে খালি জায়গায় স্থানান্তর করা হয়। এতে করে কালের স্রোতে জৌলুস হারানো উপজেলার সবচেয়ে প্রাচীন বাজারটি আবারো প্রাণ ফিরে পায়।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, রাস্তার পাশে স্থায়ী স্থাপনাগুলো উচ্ছেদ করায় রাস্তাটি বেশ চওড়া হয়েছে। অনায়াসে বাজারের ভেতরে যানবাহন সহ পথচারী যাতায়াত করছেন। ময়লা আবর্জনার কোন স্তূপও নেই। বাজারের ভেতর রয়েছে অনেক পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন। বাজারে প্রায় শতাধিক ব্যবসায়ীরা কাঁচাবাজার, মাছ ও সবজী বাজার নিয়ে বসেছেন। ক্রেতারা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মালামাল ক্রয় করছেন। কোন ধরণের ভোগান্তি নেই। এদিকে বাজারের অবকাঠামোগত উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে। ব্যবসায়ীরা জানান, এই বাজারে মানুষের আনাগোনা না থাকায় তাঁরা রাস্তার পাশে দোকান তৈরি করে ব্যবসা করছিলেন। বর্তমানে তাদের কামিনীগঞ্জ বাজারে সবধরণের সুযোগ-সুবিধা দেওয়ায় তারা রাস্তার পাশ থেকে দোকানগুলো সরিয়ে নিয়েছেন। বাজারের সবজী বিক্রেতা হেলাল আহমদ ও মাছ বিক্রেতা একান্ত জানান, একসময় তারা জুড়ী শহরে রাস্তার পাশে অবৈধভাবে দোকান বসিয়ে ব্যবসা করতেন। কিন্তুু বর্তমানে তারা বৈধভাবে কামিনীগঞ্জ বাজারে সেড ঘরের ভিতরে বসে ব্যবসা পরিচালনা করছেন। এতে তারা বেজায় খুশি। তাদের কথা চিন্তা করে হারানো বাজারকে পুনরুদ্ধার করায় তারা ইউএনও অসীম চন্দ্র বনিকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। তারা বলেন, ইউএনও অসীম স্যার না হলে হয়তো তাদের সারাজীবন রাস্তার পাশে অবৈধভাবে ব্যবসা করতে হতো।

সরেজমিন বাজারের বাস্তব চিত্র ঘুরে দেখার সময় কথা হয় ইউএনও অসীম চন্দ্র বনিকের সাথে। তিনি জানান, কিভাবে এই শতবর্ষী বাজারকে মৃত থেকে জীবিত করেছেন। ঐতিহ্যবাহী এই বাজারটি পুনরুদ্ধারে তিনি সবার সহযোগিতা পেয়েছেন বলে অকপটে স্বীকার করেন। উপজেলা হাটবাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হওয়াতে বাজার উন্নয়নের চিন্তাভাবনা রয়েছে তাঁর। আগামী এক সপ্তাহের ভিতরে তিনি গণমাধ্যমকর্মী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে আলোচনা করে বাজারের সামগ্রীক উন্নয়নের বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নেবেন। হাটবাজার তহবিলে পর্যাপ্ত টাকা রয়েছে বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অসীম চন্দ্র বনিক এ প্রতিবেদককে বলেন, জুড়ী উপজেলার কামিনীগঞ্জ বাজারের একটা অতীত ঐতিহ্য ছিলো। শক্তিশালী সিন্ডিকেট ও নানাবিধ অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে বাজারটি তার স্বকীয়তা হারায়। কিন্তু জনগণের মধ্যে এই বাজারের স্মৃতি এখনো বিলুপ্ত হয়নি। এই অনুভূতি যেদিন বুঝতে পেরেছি সেসময় থেকেই এই বাজার পুনরুদ্ধার করার পরিকল্পনা করি। ফুটপাত ও রাস্তার পাশে অবৈধ বাজার অপসারণ করে জুড়ী থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম সরদার ও ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম রেজার সহযোগিতায় কামিনীগঞ্জ বাজারকে সচল করি। তিনি আরো বলেন, সাধারণ ব্যবসায়ীদের মুখের দিকে তাকিয়ে দেখা গেছে তাদের মনে কোন কষ্ট নেই, তারা খুবই খুশি। কাঁচামাল ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জীবনমান উন্নয়নে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এখন এই বাজারটির উন্নয়নে ও ব্যবসায়ীদের কথা চিন্তা করে মোটা অংকের অর্থ বিনিয়োগ করে বাজারটিকে ঝাঁকঝমকপূর্ণ করবো। ফলে কামিনীগঞ্জ বাজার হবে জুড়ীর উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দু। এই বাজার থেকে সরকার অনেক টাকা রাজস্ব পাবে। বাজারটি ফিরে পাবে তার অতীত ঐতিহ্য ও গৌরব। অর্থাৎ এই বাজারটির স্বকীয়তা ও ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনা উপজেলা প্রশাসনের একটি অনন্য ও সাফল্যমন্ডিত উদ্যোগ যা স্মরণীয়। এসব কাজের সকল সমস্যা সমাধানে সব কৃতিত্ব জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন স্যারের।

সর্বশেষ সংবাদ