December 12, 2019

কুলাউড়ায় চা-বাগান শ্রমিক ও খাসিয়াদের সংঘর্ষে মামলা পাল্টা মামলা

বিশেষ প্রতিনিধি : কুলাউড়ায় বিরোধপূর্ণ ভূমির সড়কে যাতায়াত নিয়ে ঝিমাই চা-বাগান ও ঝিমাই পুঞ্জির খাসিয়াদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় মামলা পাল্টা মামলা হয়েছে। বুধবার রাতে প্রথমে ঝিমাই পুঞ্জির মন্ত্রী রানা সুরং ১২ জনকে অভিযুক্ত করে থানায় মামলা করেন এবং অপরদিকে ঝিমাই চা বাগানের ব্যবস্থাপক মনিরুল ইসলামও পুঞ্জির ৭জনকে অভিযুক্ত করে পাল্টা মামলা দায়ের করেন।

জানা যায়, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঝিমাই পুঞ্জির খাসিয়ারা তাদের নির্মানাধীন একটি গীর্জার কাজে ব্যবহৃত টাইলসসহ মালামাল নিয়ে যাওয়ার জন্য ঝিমাই চা বাগানের গেইটের সম্মুখে যায়। এসময় ট্রাকটি গেইটে ভিতরে প্রবেশ করতে না পারায় পুঞ্জির ১৫-২০জন লোক কাঁধে করে মালামাল নিয়ে যেতে চাইলে বাগানের পাহারাদার জামাল মিয়া তাদেরকে বাঁধা দেয় এবং বাগান ব্যবস্থাপকের অনুমতি নিয়ে আসার জন্য বলেন। কিন্তু এসময় দু’পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হলে (পাগলা ঘন্টা) বাজালে বাগানের শ্রমিকরা ছুঁটে এসে উপস্থিত হলে সংর্ঘষ ও উত্তেজনাকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। একপর্যায়ে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে ৭ জন আহত হয়। আহতদের ৪ জন চা শ্রমিক ও ৩ জন খাসিয়া রয়েছে বলে জানা গেছে। তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাদেক কাউসার দস্তগীর ও ওসি মো. ইয়ারদৌস হাসান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

ঝিমাই পুঞ্জিতে বসবাসরত খাসিয়াদের সাথে দীর্ঘদিন থেকে পাশ্ববর্তী ঝিমাই চা-বাগান কর্তৃপক্ষের সাথে ভূমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিলো। পুঞ্জিতে প্রায় শতাধিক পরিবারের বসবাস। পান চাষ করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে। ওই এলাকায় বিরোধপূর্ণ ৬৬১ একর লিজকৃত জায়গা নিয়ে ঝিমাই চা-বাগান ও পুঞ্জির মধ্যে উচ্চ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। বিভিন্ন সময়ে পুঞ্জিতে প্রবেশের সড়ক দিয়ে পণ্য ও যাত্রীবোঝাই গাড়ি চলাচলে বাগান কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা থাকায় এ নিয়ে দু’পক্ষের বিরোধ আরো প্রকট আকার ধারণ করে।

ঝিমাই পুঞ্জির মন্ত্রী রানা সুরং বলেন, পুঞ্জির ভিতরে গীর্জার কাজের জন্য মালামাল নিয়ে যাচ্ছিলেন আমাদের লোকেরা। কিন্তু বাগানের পাহারাদার এতে বাঁধা দিলে বাকবিতন্ডা হয়। এসময় আমার পুঞ্জির ৩জন লোক আহত হয়। এদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় পুঞ্জির লোকদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। তিনি আরো বলেন, পুঞ্জির কেউ হঠাৎ অসুস্থ হলে তখন গাড়ি নিয়ে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় অনেক দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এটা আমাদের সাথে অমানবিকতা করা হচ্ছে।

ঝিমাই চা বাগানের ব্যবস্থাপক মো. মনিরুজ্জামান জানান, খাসিয়াদেরকে বাগানের রাস্তা দিয়ে ভারী যানবাহন চলাচলে বিধি নিষেধ রয়েছে। তবে পুঞ্জির কেউ অসুস্থ হলে বাগান কর্তৃপক্ষ কখনো তাদের বাঁধা প্রদান করেনা। গাড়ি ব্যবহারের পূর্বে বাগান কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে বলে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জোরপূর্বক খাসিয়ারা গেইটের পাহারাদারকে মারধর করে বাগানে প্রবেশের চেষ্টা করলে বাগানের অন্যান্য শ্রমিকরা তাদের ধাওয়া দেয়। এতে বাগানের ৪ জন শ্রমিক আহত হন।

কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়ারদৌস হাসান বৃহস্পতিবার বিকেলে বলেন, এ ঘটনায় দু’পক্ষ মামলা করেছেন। তদন্তক্রমে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ