October 22, 2019

আবরার হত্যাকাণ্ড: দ্রুত বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি ঢাবি শিক্ষক সমিতির

বাংলানিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদের হত্যাকাণ্ডে প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। এই ঘটনায় তারা শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছেন। তারা আবরারের হত্যাকারীদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন। আজ এক সংবাদবিজ্ঞপ্তিতে তারা এই দাবি জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জ্ঞানচর্চা ও বিতরণই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান কাজ। মুক্তবুদ্ধির চর্চা ও পরমতসহিষ্ণুতা ব্যাহত হলে বিশ্ববিদ্যাল তার লক্ষ্য থেকে বিচ্যুত হয়ে পড়ে। আবরারের এই নিষ্ঠুর হত্যাকাণ্ডে বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছুসংখ্যক শিক্ষার্থীর চরম অসহিষ্ণুতার বহিঃপ্রকাশ; যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহ্য ও চিন্তাচেতনার পরিপন্থি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, দুঃখের বিষয় এই যে, গত কয়েক দশকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহে অসহিষ্ণুতার চর্চা চলছে। সমাজপরিসরে বিদ্যমান নীতিহীনতা, বিবেকশূন্যতা ও চিন্তাজগতের আড়ষ্টতা আমাদের এক অজানা গন্তব্যের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। বিদ্যমান এই পরিস্থিতির প্রতিকার না হলে জাতি হিসেবে আমরা অন্তঃসারশূন্য ও দেউলিয়া হয়ে পড়বো।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, আজকের শিক্ষার্থীরাই আগামীর বাংলাদেশ। এই শিক্ষার্থীদের মধ্যে রয়েছে অপার সম্ভাবনা। যেমনটি ছিলো আবরারেরও। এই বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থীর চিন্তার জগতে মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত না করা গেলে এবং শিক্ষাঙ্গনে সহিষ্ণু পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে না পারলে আগামী প্রজন্মের কাছে আমরা দায়বদ্ধ থাকবো। সকল রাজনীতিবিদ, শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, অভিভাবক এবং নাগরিক সমাজসহ সকলের নিকট আমাদের উদাত্ত আহ্বান জানান। তারা বলেন, আসুন, আমরা সমস্ত ভেদাভেদ ভুলে শিক্ষাঙ্গনকে প্রকৃত মানুষ গড়ার প্রতিষ্ঠানে পরিণত করি এবং সকলে মিলে শিক্ষাঙ্গনে সহিষ্ণু পরিবেশ সৃষ্টির কার্যকর উদ্যোগ নেই। আমরা চাই বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হয়ে উঠুক শিক্ষাবান্ধব, নিরাপদ ও মানবিক।

বিজ্ঞপ্তিতে তারা জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আবরারের হত্যাকারীদের অতিদ্রুত বিচারের আওতায় আনার জন্য সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন। তারা প্রত্যাশা করেন দ্রুততম সময়ের মধ্যেই এই হত্যাকাণ্ডের বিচার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত হবে।

সর্বশেষ সংবাদ