August 23, 2019

বিপজ্জনক পন্থায় মানব পাচার রুখতে হবে

রায়হান আহমেদ তপাদার : ঝুঁকিপূর্ণ বিভিন্ন পথ ব্যবহার করে বাংলাদেশের লোকজনের বিদেশে পাড়ি দেওয়া থামছে না। ভাগ্য বদলাতে অনেকে দেশ-বিদেশি মানব পাচারকারীদের প্রলোভনের শিকার হচ্ছেন। এর ফলে সাম্প্রতিক সময়ে মানব পাচারের শিকার হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে বাংলাদেশিদের নাম বারবার আসছে।বিপজ্জনক পথে মানব পাচার যে বন্ধ হয়নি, তার সর্বশেষ উদাহরণ লিবিয়া থেকে ভূমধ্যসাগর হয়ে ইতালি যাওয়া বাংলাদেশের লোকজনের নৌকাডুবির ঘটনা।পৃথিবীর যেসব দেশ থেকে মানব পাচারের ঘটনা সবচেয়ে বেশি বাংলাদেশের স্থান সে তালিকায় প্রথম কাতারে। প্রতি বছর এ দেশ থেকে হাজার হাজার নারী-পুরুষ পাচার হচ্ছে বিভিন্ন দেশে। পাচারকারীদের লোভনীয় চাকরির ফাঁদে পা দিয়ে বিপুলসংখ্যক নারী বিদেশে পাচার হওয়ার পর ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে। লোভনীয় চাকরির নামে বিদেশে পাঠিয়ে যুবকদের দাস ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করে দেওয়ার ঘটনাও ঘটছে অহরহ। বাংলাদেশ প্রতিদিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে মানব পাচার চক্রের চোখ পড়েছে আফ্রিকার দেশ আলজেরিয়া এবং মৌরি তানিয়ার দিকে। চক্রের খপ্পরে পড়া নরনারীদের সেখান থেকে সাগরপথে পাচার করা হচ্ছে ইউরোপের স্পেন ও ইতালিতে। এর বাইরে মানব পাচারের জন্য চক্রের পছন্দে রয়েছে ইউরো-এশিয়ান দেশ জর্জিয়া, তুরস্ক, এশীয় দেশ ইরান এবং আফ্রিকান দেশ লিবিয়া। মানব পাচারে পৃষ্ঠপোষকের ভূমিকা পালন করছে কয়েকটি এয়ারলাইনসের দুর্নীতিপরায়ণ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এয়ার অ্যারাবিয়া, মালিন্দ এবং ফ্লাই দুবাই এয়ারলাইনসের কোনো কোনো অসৎ কর্মকর্তা বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনের কিছু লোককে হাত করে নেয়। তারাই বলে দেয় কোনো কাউন্টার দিয়ে পাচারের লোকদের ঢোকানো হবে।

মানব পাচার চক্রটি ই-ভিসার সুবিধায় ইউরোপে যেতে আগ্রহী বাংলাদেশিদের প্রথমে জর্জিয়া পাঠায়। এরপর তাদের তুরস্ক হয়ে ইউরোপের অন্য কোনো দেশে পাঠানোর জোর চেষ্টা চালায়। বিকল্প হিসেবে অবৈধভাবে সাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপের উন্নত দেশগুলোতে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। সব কিছুই হয় চুক্তির ভিত্তিতে। জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার তথ্যানুযায়ী গত আট বছরে প্রায় দেড় লাখ মানুষ বঙ্গোপসাগর দিয়ে মানব পাচারের শিকার হয়েছে। ঝুঁকি নিয়ে সাগর পাড়ি দিতে গিয়ে অন্তত দেড় হাজার মানুষ মারা গেছে। মানব পাচারের সঙ্গে জড়িত অপরাধী চক্র পাচারের শিকার ব্যক্তিদের বিদেশে আটক করে তাদের পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণও আদায় করে অনেক সময়। মানব পাচার দেশের ভাবমূর্তি এবং হাজার হাজার মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করলেও অপরাধীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে। গত সাত বছরে এ-সংক্রান্ত মামলার মাত্র ৫ শতাংশের নিষ্পত্তি হয়েছে। সাজাপ্রাপ্তের সংখ্যাও নগণ্য। পাচার বন্ধে এ-সংক্রান্ত বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন যেমন জরুরি তেমনি পাচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনের কড়া মনোভাব থাকতে হবে; যা এখন সময়েরই দাবি।মানব পাচারের উর্বর ভূমি হিসেবে যেসব দেশকে ভাবা হয়, বাংলা দেশের স্থান তার ওপরের দিকে। মানব পাচারের লজ্জা থেকে বাঁচতে ২০১২ সালে মানব পাচার দমন ও প্রতিরোধ আইন প্রণয়ন করা হলেও তা বজ্র আঁটুনি ফসকা গেরোয় পরিণত হয়েছে। এ আইনের অধীনে ট্রাইব্যুনাল গঠনের কথা থাকলেও গত সাত বছরে তা হয়নি। ট্রাইব্যুনাল গঠিত না হওয়ায় আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপন অনুসারে প্রতিটি জেলায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মানব পাচারের মামলার বিচার চলছে। এর ফলে মামলাগুলোর দ্রুত নিষ্পত্তি নিশ্চিত হচ্ছে না। তৈরি হচ্ছে দীর্ঘসূত্রতা।

অভিযোগ রয়েছে, অনেক সময়ই পিপিরা মানব পাচার মামলার শুনানিতে আগ্রহ কম দেখান। সাক্ষী হাজির করতেও তারা গাফিলতি করেন। এ কারণে একদিকে যেমন মামলা নিষ্পত্তিতে দীর্ঘসূত্রতা হয়, তেমনি আসল অপরাধীরা পার পেয়ে যায়।জানা যায় এসব বিভিন্ন মামলা গত পাঁচ বছর ধরে বিচারাধীন রয়েছে।মানুষ

জানেনা এসবের বিচার কবে হবে? আর এতে করেই

অপরাধীদের মনে কোন অপরাধবোধ জাগ্রত হচ্ছে না

বরং আরো অপরাধী হয়ে উঠেছে। পাচারের ক্ষেত্র হিসেবে বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। এ ছাড়া আছে মিয়ানমার। দক্ষিণ এশিয়ায় বছরে দেড় লাখ মানুষ পাচারের শিকার হয়।

অভিবাসীদের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে প্রাণঘাতী সীমান্ত ভূমধ্যসাগর। ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে প্রবেশ করতে গিয়ে ২০০০ সাল থেকে এখন অবধি ৩৩ হাজার মানুষ মারা গেছে বলে জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। অবৈধ পথে ইউরোপে ঢোকার উদ্দেশে ঝুঁকি নিয়ে নৌকায় ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়ার বিষয়ে বাংলাদেশিদের সতর্ক করেছে লিবিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস। এক বিজ্ঞপ্তিতে এমন ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা থেকে বিরত থাকার জন্য বলা হয় বাংলাদেশিদের। সম্প্রতি লিবিয়া উপকূল থেকে ভূমধ্যসাগর পাড়ি দেওয়ার পথে অনেক বাংলাদেশি নিহত হন। আরেকটি নৌকায় বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশের ৭৫ নাগরিক ইউরোপের পথে যাত্রার চেষ্টা করেছিলেন। এ ছাড়াও বিভিন্ন সময়ে অবৈধভাবে যাত্রার সময়ে অকালে প্রাণ দিয়েছেন অনেকেই। উল্লেখ্য, ২০১৮ সাল থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে অবৈধভাবে অভিবাসনের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতেই লিবিয়ার বাংলাদেশস্থ দূতাবাস বাংলাদেশিদের ব্যাপারে সতর্কতা জারি করেছে।

অবৈধভাবে দালালের মাধ্যমে বিদেশে যেতে চাইলে, বিদেশে কাজের সন্ধান দেওয়া তো দূরের কথা, টাকা হাতিয়ে নিয়ে মাঝপথেই পালিয়ে যায় প্রতারকরা। বিনা টাকায় অথবা কম টাকায় বিদেশে পাঠানো হবে, এ ধরনের প্রলোভন দেখিয়ে থাকে পাচারকারীরা। ইতোমধ্যে জাল পাসপোর্ট, অবৈধ বা বুয়া কাগজ পত্রসহ বিদেশে ধরা পড়ে জেল-জরিমানার শিকার হয়েছেন অনেকেই। এসব কারণে জায়গা-জমি বিক্রি করে দেওয়া টাকা, উচ্চ সুদে ঋণের টাকা জলাঞ্জলি দিয়ে বাধ্য হয়ে দেশে ফিরে এসেছেন এমন লোকের সংখ্যা নেহাত কম নয়। কেবল ২০০৮ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত এক লাখেরও বেশি বাংলাদেশি ইউরোপের দেশগুলোতে অবৈধভাবে প্রবেশ করেছে। এটা সত্য, অবৈধ উপায়ে বিদেশ গমন করতে গিয়ে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটছে। বাংলাদেশি দালাল চক্রের সঙ্গে তুরস্ক ও জর্জিয়ার কিছু নাগরিক জড়িত। প্রতি বছর বিদেশে পাচারের সময় বিপুলসংখ্যক নর-নারীকে উদ্ধার করা হলেও জনসচেতনতার অভাবে পাচারের ঘটনা কমছে না। বাংলাদেশ থেকে ব্যাপক হারে মানব পাচারের ফলে উন্নত দেশগুলো বাংলাদেশের নাগরিকদের ভিসা দিতে দ্বিধায় ভোগে। দেশের সুনামের স্বার্থে মানব পাচারের বিরুদ্ধে সরকারকে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করতে হবে।এটা মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশে যদি পর্যাপ্ত কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা থাকত, তা হলে এভাবে মানুষকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিদেশে যাওয়া লাগত না। আমরা চাই সরকার এ ব্যাপারে দ্রুত কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ করুক। সরকার যদি ব্যাপকভাবে শিল্পায়নের দিকে বিশেষ নজর দেয়; তা হলে অবৈধ পথে বিদেশে যাওয়ার প্রবণতা অনেকটাই কমে আসবে।

পাশাপাশি যেসব দালাল ও অপরাধী এর সঙ্গে যুক্ত তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। কিছুদিন আগের ঘটনায় ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে যারা মারা গেছে তারা প্রত্যেকে ৭ থেকে ৮ লাখ টাকা দালালদের দিয়েছে। এই বিপুল অঙ্কের টাকা হয় ফসলি জমি ভিটাবাড়ি বিক্রি করে, না হয় ঋণ করে জোগাড় করেছিল। ওই পরিবার এখন নিঃস্ব সর্বস্বান্ত শোকগ্রস্ত। একটি ভুল সিদ্ধান্তের কারণে পুরো পরিবার পথে বসে গেল। ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবির শিকার হয়ে একটি স্বপ্নের সম্ভাবনার অকালমৃত্যু হলো। এর দায় কে নেবে? ২০১৮ সালের অক্টোবরে মেক্সিকোর দুর্গম পথে প্রায় ২০০ বাংলাদেশি আটক হন। তাঁদের গন্তব্য ছিল যুক্তরাষ্ট্র। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস–এর গত বছরের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, যুক্তরাষ্ট্র পৌঁছাতে আগ্রহী অবৈধ অভিবাসীদের দুবাই থেকে ব্রাজিলে নেওয়া হয়। এরপর বলিভিয়া, পেরু, ইকুয়েডর, পানামা সিটি আর গুয়াতেমালা হয়ে নেওয়া হয় মেক্সিকোতে। এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রা দ্বীপে আটক করা হয় ১৯২ জন বাংলাদেশিকে। তাঁদের গন্তব্য ছিল মালয়েশিয়া। আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) জানিয়েছে, ভূমধ্যসাগর পেরিয়ে লিবিয়া থেকে ইউরোপে যাওয়ার পথটি হচ্ছে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। ২০১৪ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ওই পথ দিয়ে ইতালি যাওয়ার সময় প্রতি ৫০ জনের ১ জন মারা গেছে। আর এ বছরের জানুয়ারি থেকে মে মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত অন্তত ১৭ হাজার অবৈধ অভিবাসী ভূমধ্যসাগর দিয়ে ইউরোপে ঢুকে পড়েছে। এ সময়ে সাগরে হারিয়ে গেছে অন্তত ৪৪৩ জন। জাতিসংঘের মাদক ও অপরাধ দপ্তরের (ইউনিডক) ২০১৮ সালের মানব পাচারবিষয়ক বৈশ্বিক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পশ্চিম ও দক্ষিণ ইউরোপের বিভিন্ন স্থানে দক্ষিণ এশিয়ার অন্তত ৫ শতাংশ নাগরিককে পাওয়া গেছে। দক্ষিণ এশিয়া থেকে মানব পাচারের শিকার হওয়া এসব লোক মূলত ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের নাগরিক। এ ছাড়া দক্ষিণ এশিয়ার লোকজন বিশ্বের ৪০টি দেশে মানব পাচারের শিকার হয়। মানব পাচারকারীদের খপ্পর থেকে মুক্তি পাওয়ার পর বিদেশগামী বাংলাদেশিরা বলছেন, মূলত উন্নত জীবনের আশায় এসব ঝুঁকিপূর্ণ পথে তাঁরা দেশের বাইরে পা রাখেন। দেশের উন্নয়ন আর প্রবৃদ্ধির এমন আবহে বাংলাদেশি নাগরিকদের মানব পাচারকারীদের খপ্পরে পড়ার কারণ জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা হোসেন জিল্লুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘মরিয়া হয়ে যাঁরা বিদেশ যাচ্ছেন, তাঁদের অধিকাংশই বয়সে তরুণ। তাঁদের অনেকেই হয়তো স্কুল কিংবা কলেজের পাট চুকিয়েছেন। অর্থনীতি এখন কোন ধরনের কাজের সুযোগ করে দিচ্ছে? অনানুষ্ঠানিক অর্থনীতি হয়তো চায়ের দোকানে কিংবা অ্যাপভিত্তিক পরিবহন যাত্রীসেবায় লোকজনের কাজের সুযোগ করে দিচ্ছে। কিন্তু বিদেশগামী তরুণেরা আসলে কী ধরনের কাজ চান, সেটা আমাদের নীতিনির্ধারকদের বুঝতে হবে। তাঁরা নিজেদের জন্য উন্নত ভবিষ্যৎ চান। মর্যাদাসম্পন্ন কাজ চান। আমরা কি সেটা দিতে পারছি? তাই ঝুঁকি নিয়ে তাঁরা বিদেশে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। প্রবৃদ্ধির উচ্চ হার দিয়ে এটা পুরোপুরি বোঝা সম্ভব নয়।

লেখক ও কলামিস্ট-raihan567@yahoo.com

সর্বশেষ সংবাদ