July 15, 2019

টিলাগাঁওয়ে ব্রীজে ফাটল, মান নিয়ে এলাকাবাসীর প্রশ্ন!

বিশেষ প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের নয়াবাজার-লালপুর-লংলা চা-বাগান সড়কের স্থানীয় আখালী ছড়ার উপর নির্মানাধীন একটি ব্রীজের কাজ শেষ হওয়ার আগেই ব্রীজের উইং ওয়ালে দেখা দিয়েছে ফাটল। এ নিয়ে গত কয়েকদিন থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে চলছে নানা সমালোচনা। কাজের মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।
জানা যায়, ২০১৮ সালের রমজানে মনু নদীর ভাঙ্গণে ভয়াবহ বন্যার ফলে ওই ব্রীজটি ভেঙ্গে যায়। ব্রীজ ভেঙ্গে যাওয়ার একবছর পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) কুলাউড়ার উদ্যোগে ব্রীজটি পূননির্মাণের জন্য দরপত্রের মাধ্যমে টেন্ডার আহবান করা হয়। কাজের ব্যয় ধরা হয় মোট ২৭ লক্ষ টাকা। টেন্ডারের মাধ্যমে কাজটি পান মের্সাস কামরুল হাসান বখশ নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্টান। পরবর্তীতে ওই ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কাজ সম্পাদনের দায়িত্ব নেন সাব-ঠিকাদার রুবেল আহমদ। বর্তমানে তিনি ব্রীজের কাজটি করছেন। এখন পর্যন্ত ব্রীজের সিংহভাগই কাজই শেষ হয়েছে। কিন্তুু দুই/তিন আগে ব্রীজের সংযুক্ত সড়কে মাটি ভরাটের সময় ব্রীজের পশ্চিম পার্শ্বের ভীমের সাথে সংযুক্ত উইং ওয়ালে দেখা দিয়েছে বড় ধরণের ফাটল। এবং দক্ষিণ পার্শ্বে উইং ওয়ালেও দেখা দিয়েছে ফাটল। এ নিয়ে স্থানীয় এলাকাবাসী কাজের মান নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন তুলেছেন।
সরেজমিন টিলাগাঁও ইউনিয়নের লালপুর এলাকায় গিয়ে স্থানীয়দের সাথে আলাপ করলে জানা যায়, গুরুত্বপূর্ণ এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্র-ছাত্রীসহ সহস্রাধিক মানুষ, লংলা চা-বাগান ও তারাপাশা চা-বাগানের আশেপাশের এলাকার ভারী যানবাহন নিয়মিত চলাচল করতো। ব্রীজটির নির্মাণ কাজের কারণে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ডাইভারশন না দেওয়ায় বিকল্প সড়ক দিয়ে একবছর থেকে যান চলাচল অব্যাহত থাকে। যারফলে বছর খানেক থেকে স্থানীয় এলাকাবাসীরা নানা দূর্ভোগের মধ্য দিয়ে চলাচল করছেন। স্থানীয় লালপুর এলাকার বাসিন্দা উম্মর আলী, ইউনুছ আলী, শফিক মিয়া, ইনসান মিয়া, রফিক মিয়াসহ অনেকেই জানান, দীর্ঘদিন ভোগান্তির পর নির্মিত এই ব্রীজটির কাজ শেষ হলেও যানবাহন চলাচলের আগেই ফাটল দেখা দেওয়ায় কাজের মান নিয়ে আমাদের সন্দেহ হচ্ছে। ব্রীজের কাজে রড ব্যবহারেও কারসাজি করা হয়েছে। কাজের মান নিয়ে আমরা ঠিকাদারকে জিজ্ঞেস করলে তিনি উত্তরে বলেন ম্যানুয়েল অনুযায়ী কাজ চলছে। ব্রীজটির কাজ মানসম্মত ভাবে সমাপ্তের দাবি জানান স্থানীয় এলাকাবাসী।
কার্যসম্পাদনকারী সাব-ঠিকাদার রুবেল আহমদ বলেন, ব্রীজের পাশে এক্সেলেটর দিয়ে মাটি ভরাট করতে গিয়ে একটি ফাটল দেখা দেয়। কিন্তুু স্থানীয় এলাকাবাসী ছেনি ও হাতুড়ি দিয়ে ফাটাকৃত জায়গাটি বড় করে দেন।
কুলাউড়া উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) মু. ইসতিয়াক হাসান বলেন, এক্সেলেটর দিয়ে মাটি ভরাট করতে গিয়ে ব্রীজের উইং ওয়ালে ধাক্কা দেয়ায় ফাটা দেখা দেয়। ঠিকাদার নিজ খরচে তা মেরামত করে দিতে বাধ্য। সঠিকভাবে কাজ সমাপ্ত না করলে কাজের বিল প্রদান করা হবে না।

সর্বশেষ সংবাদ