June 17, 2019

কুলাউড়া বিএনপির সংবাদ সম্মেলন-১৫ বছর পর ঘুরে দাঁড়াচ্ছে কুলাউড়া বিএনপি

কুলাউড়া প্রতিনিধি : দীর্ঘদিন থেকে বিচ্ছিন্নভাবে দলীয় কর্মকান্ড পরিচালনা করার ফলে সাংগঠনিকভাবে অনেকটা দূর্বল হয়ে পড়েছিলো কুলাউড়া উপজেলা বিএনপি। ১৫ বছর থেকে নেই কোন নতুন কমিটি। নেই কার্যকরী কোন সাংগঠনিক কার্যক্রম। গ্র“পিং এবং ভঙ্গুর সাংগঠনিক স্থবিরতায় পঙ্গুপ্রায় বিএনপি আজ ঐক্যবদ্ধ। বিগত জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কুলাউড়া বিএনপি ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। ইতোমধ্যে কুলাউড়া পৌরসভা ও উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের কাউন্সিল, সম্মেলন ও কমিটি গঠন সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ১৫ জুন উপজেলা বিএনপির কাউন্সিল ও সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচনের মাধ্যমে কুলাউড়া বিএনপির কার্যক্রম আরও একধাপ এগিয়ে যাবে। নতুন উল্লাসে, নতুন উদ্যোমে কুলাউড়া বিএনপি তাঁদের নিজেদের সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে।’
১৩ জুন বৃহস্পতিবার বিকেলে কুলাউড়া পৌর শহরের একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলনে মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট এএনএম আবেদ রাজা বলেন, ‘দীর্ঘদিন দুই ভাগে বিভক্ত কুলাউড়া উপজেলা বিএনপি আজ এক মঞ্চে। দুই গ্র“পের নেতারা আজ এক কাতারে। গত ৩০ মার্চ কুলাউড়ার বিভক্ত দুটি কমিটি বিলুপ্ত করে উপজেলা ও পৌর বিএনপির নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে জেলা বিএনপি। শর্তসাপেক্ষে মাত্র ৩ মাসের মধ্যে কাউন্সিল ও সম্মেলনের মাধ্যমে পৌরসভা ও বিভিন্ন ইউনিয়নের মোট ১২৬টি ওয়ার্ড কমিটি গঠন করা হয়েছে। কাউন্সিলরদের গোপন ব্যালটের মাধ্যমে পৌরসভা ও উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন কমিটি ইতোমধ্যে গঠন করা সম্পন্ন হয়েছে।’
তিনি বলেন, আগামী ১৫ জুন উপজেলার আহ্বায়ক কমিটির ১৩জন সহ ১৩ ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক মোট ২৬ জন মিলে মোট ৩৯ জন কাউন্সিলর তাদের গোপন ব্যালটের মাধ্যমে উপজেলা বিএনপির নতুন সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত করবেন। এরই মাধ্যমে কুলাউড়া উপজেলা বিএনপির নতুন এক সূর্য উদয় হবে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সীমাহীন সংকটে। গণতান্ত্রিক চর্চার অভাবে দেশের প্রধান কর্তাদের জীবন আতংকে দিন কাটাতে হচ্ছে। বিএনপির চেয়ারপার্সন, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার ন্যায় বিচার তো দূরের কথা চিকিৎসা পর্যন্ত পায় না। দেশে এখন আর ভোটের দরকার হয় না। আগের রাতেই ভোট হয়। দেশে বিরোধী দল আনুষ্ঠানিকভাবে গৃহপালিত হয়ে গেছে, যারা অঁটুট বলতে চায় তারা নিরব নিস্তব্ধ নিথর হয়ে আলৌকিক কিছুর জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যাচ্ছে। দেশের মানুষ বিএনপির উপর বিশ্বাস ও আস্থা রাখতে চায়। এরই প্রয়াসে কুলাউড়া বিএনপি ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় পৌরসভা ও বিভিন্ন ইউনিয়নে কমিটি গঠন এবং আগামী শনিবার ১৫ জুন উপজেলা বিএনপির কাউন্সিল ও সম্মেলন।’ ১৫ জুনের সম্মেলনের পর কুলাউড়া বিএনপির নতুন কার্যক্রম শুরু হবে। জেলের তালা ভেঙে দেশনেত্রীকে কারাগার থেকে মুক্তির কঠিন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে কুলাউড়া থেকে। দেশনেত্রীকে কারাগার থেকে মুক্তির আগামীর যূগপৎ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিবে কুলাউড়া বিএনপির নেতৃবৃন্দ।’ সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক আলমগীর হোসেন ভুইয়া, যুগ্ম আহ্বায়ক রফিক আহমদ, পৌর বিএনপির নবনির্বাাচিত সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল আলম সোহেল, উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আশরাফ আলী চৌধুরী, রফিক আহমদ ফাতু প্রমুখ।
আগামী ১৫ জুন অনুষ্টিতব্য উপজেলা বিএনপির কাউন্সিলে প্রার্থীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সভাপতি পদপ্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি, জেলা বিএনপির সদস্য কামাল উদ্দিন আহমদ জুনেদ, উপজেলা বিএনপির সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, বর্তমান পৌর প্যানেল মেয়র জয়নাল আবেদীন বাচ্চু, উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সদস্য এম এ মজিদ, সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সদস্য রেদওয়ান খাঁন, সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক জয়নাল আবেদীন খাঁন, সাংগঠনিক সম্পাদক পদপ্রার্থী সুফিয়ান আহমদ (প্রিন্স), ময়নুল হোসেন বকুল, বদরুল হোসেন খাঁন, দেলোয়ার হোসেন, আব্দুস সালাম। প্রার্থীদের মধ্যে অনুপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সদস্য বদরুজ্জামান সজল, বিএনপি নেতা জয়নুল ইসলাম জুনেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক পদপ্রার্থী মোহাম্মদ আব্বাছ আলী।
উল্লেখ্য, আগামী ১৫ জুন বিএনপির কাউন্সিল উপলক্ষে গত ১১ জুন মঙ্গলবার থেকে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প চালু করা হয় এবং ১২ জুন বুধবার আইনী পরামর্শ কেন্দ্র উদ্বোধন করা হয়।

সর্বশেষ সংবাদ