May 20, 2019

পেন্ডুলামে দুলছে চা কইন্যা অদিতির ভাগ্য

বিশেষ প্রতিনিধি : কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নের চা-বাগান অধ্যুষিত মাধবপুর বস্তি লাইন এলাকার হতদরিদ্র পরিবারের মেধাবী কন্যা অদিতি নুনিয়া। বাবা নেই সংসারে। মা রুমা নুনিয়া ও ভাই অতুল নুনিয়া। অনেক কষ্টে কোনভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে যে পরিবারটি। সে পরিবারের দুই সদস্যের লেখাপড়া করানো দুঃসাধ্যই বৈকি। তবুও লেখাপড়া করে মানুষ হবার ব্রত নিয়ে শত বাঁধা ডিঙিয়ে অদিতি পড়ছে। এবছর এসএসসি পরীক্ষায় মাধবপপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিজ্ঞান বিভাগে গোল্ডেন জিপিএ-৫ লাভ করেছে সে। অদিতি পিএসসি ও জেএসসিতেও জিপিএ-৫সহ বৃত্তি লাভ করে।

কমলগঞ্জের মাধবপুর উচ্চ বিদ্যলয়ের ইতিহাসে অদিতি প্রথম গোল্ডেন জিপিএ-৫ পেয়েছে। মা রুমা নুনিয়া মাধবপপুর চা বাগানের ভেতর একটি ছোট্ট বিউটি পার্লারের দোকানে কাজ করেন। নুন আনতে পান্তা ফুরায় সংসারে অনেকদিন না খেয়েই ঘুমাতে হয় অদিতিদেরকে। ক্ষুধার যন্ত্রণা আর দারিদ্রের কঠোরতায় তবু তার শিক্ষা অর্জনের পৃহাকে একটুও দমিয়ে রাখতে পারেনি। তাই খেয়ে না খেয়ে প্রতিদিন নিয়মিত ক্লাস করে এবারের এসএসসিতে এ ফলাফল লাভ করেছে অদিতি। অনেক আশায় বুক বেঁধে স্বপ্ন দেখেছিলো অদিতি। বাবা চিকিৎসার অভাবে হারানোর পর চিকিৎসক হয়ে দরিদ্র রোগীদের সেবায় নিজেকে বিলিয়ে দেয়ার ব্রত নেয়। আঁধার ঘরে চাঁদের আলো চা বাগানের মেয়ে অদিতির সে স্বপ্ন বোধ হয় আর পুর্ণ হবেনা, ভেঙে যাবে অচিরেই।

মা রুমা নুনিয়া কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন, অদিতির বাবা বেঁচে থাকতে আমাদের কোন কিছুর অভাব ছিলোনা। হঠাৎ করে মরে গিয়ে আমাদের ভাঁসিয়ে গেল অথৈ সাগরে। অনেক কষ্টে সন্তানদের লেখাপড়া করিয়েছি। আর পারছি না। উচ্চশিক্ষা অর্জনের জন্য অনেক টাকার প্রয়োজন। এত টাকা আমি কোথায় পাব? উচ্চ শিক্ষার প্রত্যাশা তার ও পরিবারের কাছে চরম বিলাসিতা ছাড়া আর কিছু নয়।

অদিতি নুনিয়া জানায়, ভবিষ্যতে সে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে সমাজ ও সংসারের জন্য কিছুটা অবদান রাখতে চায়। তাঁর স্বপ্ন ডাক্তার হবে। এ অবস্থায় এসএসসি পরীক্ষায় এমন আশ্চর্য্যজনক ফলাফলের পরও আমার পরিবার চরম দূর্ভাবনায়। আমার মায়ের সাধ আছে, সাধ্য নেই। এ অবস্থায় কতোদূরই যেতে পারবো ভেবে পাচ্ছি না।

কিন্তু অপ্রতিরোধ্য দারিদ্রের সুকঠিন বাধা ডিঙিয়ে এতটুকু পথ যারা পাড়ি দিতে পেরেছে, শাণিত মেধার মঙ্গল আলোয় স্বপ্ন পূরণের দৃঢ় প্রত্যয়ে তারা এগিয়ে যাবে যদি সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে আসে, তবেই পুরণ হতে পারে অদিতির উচ্চ শিক্ষার স্বপ্নসাধ। নতুবা এখানেই থেমে যাবে অদম্য মেধাবী অদিতির শিক্ষা জীবন। ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করার স্বপ্ন অদিতির। কিন্তু টাকার অভাবে সেই স্বপ্ন পূরণ হবে কিনা জানা নেই তার।

সর্বশেষ সংবাদ