August 23, 2019

কুলাউড়ায় এসএসসিতে জিপিএ-৫ পেলো ৯৫ জন শিক্ষার্থী

মাহফুজ শাকিল : মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ৩৮টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৭টি মাদ্রাসা ও ৪টি ভোকেশনালের ৫৪২৫ জন ছাত্র-ছাত্রী এবারের পরীক্ষায় অংশ নেয়। এরমধ্যে পাশ করেছে ৩৭১৯ জন। অকৃতকার্য হয়েছে ১৭০৬ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯৫ জন। কুলাউড়া মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, এবারের এসএসসি পরীক্ষায় কুলাউড়া উপজেলা থেকে মোট ৪৪৪০ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। পাশ করেছে ২৯২৪ জন। পাসের হার ৬৫ দশমিক ৮৫ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯১ জন। দাখিল পরীক্ষায় মোট ৭৫৬ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। পাশ করেছে ৬৫২ জন। শতকরা পাশের হার ৮৬ দশমিক ২৪ শতাংশ। জিপিএ-প পেয়েছে ২ জন। ভোকেশনাল পরীক্ষায় মোট ২২৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নেয়। পাশ করেছে ১৪৩ জন। পাশের হার শতকরা ৬২ দশমিক ৪৫ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২জন। উপজেলায় মাধ্যমিক পর্যায়ে এসএসসিতে শতভাগ সাফল্যে অর্জন করেছে লংলা ক্যামেলিয়া ডানকান ফাউন্ডেশন স্কুল। ১৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ১৫ জনই পাশ করে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬জন। মাদ্রাসায় শতভাগ পাশ করেছে ভাটেরা সাইফুল তাহমিনা দাখিল মাদ্রাসা। ২৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে ২৮জনই পাশ করেছে। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২জন। গিয়াসনগর দাখিল মাদ্রাসায় ৬৯ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে, গৌড়করণ দাখিল মাদ্রাসায় ৩৬জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে, ভাটেরা দারুসুন্নাহ দাখিল মাদ্রাসায় ৪২ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে সবাই পাশ করেছে। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আনোয়ার জানান, গতবছরের ফলাফলের চেয়ে এবার মাধ্যমিক পর্যায়ে এসএসসিতে জিপিএ-৫ বেড়েছে। পাশের হার কিছুটা কমেছে। দাখিলে পাশের হার অনেকটা বেড়েছে। ভোকেশনালে পাশের হার বিগত বছরের মত বহাল রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানভিত্তিক ফলাফল : নবীন চন্দ্র মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৯২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২০৪ জন। পাশের হার ৬৯.৮৬%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৫ জন। কুলাউড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৪৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৮৪ জন। পাশের হার ৭৫.৭২%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১৪ জন। বরমচাল উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ২২২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৩৬ জন। পাশের হার ৬১.২৬%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন। ছকাপন উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ১১১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮৪ জন। পাশের হার ৭৫.৬৮%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন। ভূকশিমইল মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজে ১৩১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৯৫ জন। পাশের হার ৭২.৫২%। অগ্রণী উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৩জন। পাশের হার ৫৩.০০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১জন। শাহ সুন্দর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০০জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪০ জন। পাশের হার ৪০ শতাংশ। শাহজালাল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫২জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে পাশ করেছে ১৬ জন। মহতোছিন আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৬৬ জন। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১০ জন। দিলদারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৭২ জন। পাশের হার ৫৩.৭৩%। নবীগঞ্জ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৭ জন। পাশের হার ৫০%। উত্তর কুলাউড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৩৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০০ জন। পাশের হার ৭১.৯৪%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২জন। সপ্তগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৩ জন। পাশের হার ৫৯.৫৫%। পৌর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৩ জন। পাশের হার ৫০%। ভাটেরা স্কুল এন্ড কলেজে ১৫৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১২৪জন। পাশের হার ৭৮.৯৮%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮ জন। লক্ষীপুর মিশন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৮ জন। পাশের হার ৮৫.৭১%। ক্যামেলিয়া ডানকান ফাউন্ডেশন স্কুলে ১৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ১৫জনই পাশ করেছে। পাশের হার ১০০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬জন। আলী আমজদ উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ২৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৯১জন। পাশের হার ৭৯.৫৮%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১১জন। কর্মধা উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮০ জন। পাশের হার ৭৭.৬৭%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫জন। রাউৎগাঁও উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেঝে ১১৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৭৬ জন। পাশের হার ৬৬.৬৭%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৮জন। রাজনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৬ জন। পাশের হার ৮৩.৫৮%। গজভাগ আহমদ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭৯ পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪০ জন। পাশের হার ৫০.৬৩%। কানিহাটি উচ্চ বিদ্যালয়ে ২৮৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৪৪ জন। পাশের হার ৫০.৭০%। নয়াবাজার কে.সি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজে ১৭৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০৫ জন। পাশের হার ৬০.৬৯%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। টিলাগাঁও এএন উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১১৯ জন। পাশের হার ৫৬.৯৪%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন। হাজীপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩২ জন। পাশের হার ৬২.৭৫%। হায়দরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে ১১৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৬২ জন। পাশের হার ৫২.৫৪%। মাস্টার সরাফত আলী উচ্চ বিদ্যালয়ে ১০৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৭৬ জন। পাশের হার ৭২.০০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন। লংলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১০০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৮ জন। পাশের হার ৪৮.০০%। সুলতানপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৬ জন। পাশের হার ৮১.৮২%। মনোহরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ২০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৩ জন। পাশের হার ৬৫.০০%। জালালাবাদ উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৯১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেঝে ১১৯ জন । পাশের হার ৬২.৩০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ৩ জন। শ্রীপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৩ জন। পাশের হার ৭১.৬৭%। হিংগাজিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৪৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৮৩ জন। পাশের হার ৫৭.২৪%। বঙ্গবন্ধু আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৭৮ জন। পাশের হার ৯৫.১২%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন। সিংগুর উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৩ জন। পাশের হার ৬৮.৭৫%। ইউসুফ তৈয়বুন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৯ জন। পাশের হার ৯৭.৫০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ জন। তেলিবিল উচ্চ বিদ্যালয়ে ১৭২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৩১ জন। পাশের হার ৭৬.১৬%।

শ্রীপুর সিনিয়র মাদ্রাসায় ৫২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৫ জন। পাশের হার ৮৬.৫৪%। হিংগাজিয়্ াসিনিয়র মাদ্রাসায় ৫৭ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৬ জন। পাশের হার ৮০.৭০%। দারুছুন্নাহ ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসায় ৬৪ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৩ জন। পাশের হার ৮২.৮১%। মনসুর মোহাম্মদীয়া সিনিয়র মাদ্রাসায় ৪২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৫ জন। পাশের হার ৮৩.৩৩%। গৌড়করণ দাখিল মাদ্রাসায় ৩৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৬ জন। পাশের হার ১০০%। গিয়াসনগর দাখিল মাদ্রাসায় ৬৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৬৯ জন। পাশের হার ১০০%। ভাটেরা সাইফুল তাহমিনা দাখিল মাদ্রাসায় ২৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২৮ জন। পাশের হার ১০০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। কুলাউড়া জালালিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৩১ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২০ জন। পাশের হার ৬৪.৫১%। বাবনিয়া হাসিমপুর দাখিল মাদ্রাসায় ৫৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৫ জন। পাশের হার ৯৮.২২%। হাসিমপুর দাখিল মাদ্রাসায় ৪৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩৮ জন। পাশের হার ৮২.৬১%। ভূকশিমইল আলিম মাদ্রাসায় ৪৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৪ জন। পাশের হার ৯৩.৭৫%। চৌধুরীবাজার দাখিল মাদ্রাসায় ৫৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪০ জন। পাশের হার ৭২.৭৩%। বরমচাল হযরত খন্দকার দাখিল মাদ্রাসায় ৪৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৭ জন। পাশের হার ৯৭.৯২%। ভাটেরা দারুছুন্নাহ দাখিল মাদ্রাসায় ৪২ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৪২ জনই পাশ করেছে। পাশের হার ১০০%। বাংলাটিলা দাখিল মাদ্রাসায় ২৯ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১৬ জন। পাশের হার ৫৫.১৭%। গণকিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ৪০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২৭ জন। পাশের হার ৬৭.৫০%। গাজীপুর দাখিল মাদ্রাসায় ১৩ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ১০ জন। পাশের হার ৭৬.৯২%।

এছাড়া ভোকেশনালে নবীন চন্দ্র মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ে ৮৬ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৫ জন। পাশের হার ৫২.৪০%। জিপিএ-৫ পেয়েছে ২ জন। কুলাউড়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৫৮ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৩২ জন। পাশের হার ৫৫.১০%। ভাটেরা স্কুল এন্ড কলেজে ৫৫ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৪৪ জন। পাশের হার ৮০.০০%। টিলাগাঁও এএন উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ২২ জন। পাশের হার ৭৩.৩৩%।

সর্বশেষ সংবাদ