February 16, 2019

‘আমাকে যেন ভুলে না যাও, তাই একটা ছবি পোস্ট করে মুখটা মনে করিয়ে দিলাম’

বাংলানিউজ ডেস্ক : আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল নিজের ফেসবুক হ্যান্ডেলে সর্বশেষ পোস্ট দিয়েছিলেন গত ২ জানুয়ারি। নিজের একটি ছবি পোস্ট করে লিখেছিলেন, ‘আমাকে যেন ভুলে না যাও… তাই একটা ছবি পোস্ট করে মুখটা মনে করিয়ে দিলাম।’

কী অদ্ভুত আর বিস্ময়কর কাকতাল। তার এই পোস্ট গভীর বিষাদ তৈরি করে। তিনি কি ভেবেছিলেন যে চলে যেতে পারেন, আর চলে গেলেও কি তাঁকে মানুষ ভুলে যেতে পারে? একজন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারকারীর মন্তব্য এটা।

তরুণ অভিনেতা ও উপস্থাপক ইভান সাইর সেই পোস্টের নিচে লিখেছিলেন, ‘আপনাকে ভুললে নিজেদের অস্তিত্ব ভুলে যাওয়া হবে। আপনি হৃদয়ে।’

 কন্যাসম ক্লোজ আপ তারকা বিউটি সেদিনই লিখেছেন, ‘আপনাকে ভুলা কখনোই সম্ভব না স্যার। অনেক ভালো থাকুন সব সময় স্যার,অনেক দোয়া রইলো।’

নারগিস রহমান লিখেছেন, ‘না না ভাইয়া,আপনি ভুলার মানুষ নয়। আপনি বাংলার সম্পদ। আপনার সুর ও গীতিকার আমাদের মনের খাবার যোগায়।আপনি সুস্হ ও সুন্দর থাকুন,দোয়া করবো সারা জীবন।’

অনামিকা আনিসা লিখেছেন, ‘আপনি আছেন এদেশে প্রতিটি মানুষের অন্তরে, তাই আপনাকে ভুলে যাওয়া কখনো কারো পক্ষেই সম্ভব নয়, আপনাকে ভুলে যাওয়া মানে তো নিজেকেই ভুলে যাওয়া, জানিনা কোথায় যাচ্ছেন, দোয়া করি আপনার যাত্রা শুভ হোক, নিরাপদ হোক, এবং সুন্দর হোক, ভালো থাকবেন সব সময়।’

সকলেই এই কিংবদন্তি সঙ্গীতজ্ঞকে ভালও থাকার অভিপ্রায় জানিয়েছেন। তারা কেউ কোনোভাবেই ধারণা করতে পারেন নি তাঁদের প্রিয় স্যার এভাবে চলে যাবেন।

দেশবরেণ্য এই শিল্পী আজ মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে রাজধানীর আফতাবনগরে নিজ বাসায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ। আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মরদেহ আফতাবনগরে নিজ বাসভবনে রাখা হয়েছে। আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে কোথায় দাফনের বিষয়ে তাঁর একমাত্র সন্তান সামির আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি, আব্বাকে মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সংরক্ষিত স্থানে দাফন করার অনুমতি দিন।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। তিনি রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, দুইবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং রাষ্ট্রপতি পুরস্কারসহ অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন। মাত্র ১৫ বছর বয়সে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন এই কিংবদন্তী।

সর্বশেষ সংবাদ