December 15, 2018

মনসুর-মান্নারা জেনেশুনে বিষ পান করেছে: কাদের

 স্টাফ রিপোটোর : আওয়ামী লীগ ছেড়ে দেওয়া নেতারা ঐক্যফ্রন্টে গিয়ে জেনেশুনে বিষ পান করেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন: তারা তো আওয়ামী লীগেই ছিলেন। তাদের হৃদয়ের রক্তক্ষরণ থাকবে। তারা তো জেনে শুনে বিষ পান করেছেন। সাম্প্রদায়িক অপশক্তির সঙ্গে হাত মিলিয়েছেন এটা তাদের দীর্ঘদিন তাড়িত করবে।

আওয়ামী লীগে ছেড়ে ঐক্যফ্রন্টে যোগ দেওয়া সুলতান  মোহাম্মদ মনসুর, মাহমুদুর রহমান মান্না, অধ্যাপক আবু সাইয়িদদের উদ্দেশে তিনি একথা বলেন।

শুক্রবার আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

এসময় কাদের বলেন: আমাদের ভুল-ত্রুটি থাকতে পারে। কিন্তু আমাদের রাজনীতি বাংলাদেশের মাটি ও মানুষের রাজনীতি। আমরা মানুষের মাঝে আছি। তাই ক্ষমতায় না থাকলেও পালিয়ে যাব না। এ দেশেই জন্ম, এদেশেই আমরা মরবো। যে শপথ নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু।

তিনি বলেন: আমরা ভুল হলে সংশোধন করে নেই। ভুল হলে সংশোধনের সৎ সাহস শেখ হাসিনার আছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার মনোনয়নপর্ব শেষে দেওয়া হবে বলে এসময় জানান দলের সাধারণ সম্পাদক।

 

তিনি বলেন: মনোনয়ন পর্ব শেষে ইশতেহারের বিষয়ে আমরা পদক্ষেপ নেব। সম্ভবত বঙ্গবঙ্গবন্ধু আন্তজার্তিক সম্মেলন কেন্দ্র কিংবা কৃষিবিদ ইন্সটিটিউটে ইশতেহার প্রকাশ হতে পারে। নির্বাচনী ইশতেহারে ‘দিন বদলের অভিযান, অদম্য বাংলাদেশ’ গ্রামীন উন্নয়নগুলোকে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন এখন চূড়ান্ত হয়নি বলে জানান ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন: এবার দলের মনোনয়নের ক্ষেত্রে রাজনীতিকরাই বেশী প্রাধান্য পেয়েছে। গতবারের চেয়ে এ সংখ্যা আরও বেড়েছে। সাবেক ছাত্র নেতা যারা তৃণমূল থেকে এসেছে তাদের আমরা মনোনয়ন দিয়েছি।

সর্বমোট আসন সংখ্যার মধ্যে ১৬ থেকে ১৭ জন ব্যবসায়ী মনোনয়ন পেয়েছেন। এ ছাড়া ৪০ জনের কাছাকাছি মুক্তিযোদ্ধা, আর নতুন মুখ ৫০ এর কোঠা ছুঁতে পারে বলে আমাদের কাছে মনে হচ্ছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনের আগে নিশ্চিত করে বলা যাবে না, কে বিদ্রোহী প্রার্থী। তবে কেউ দলের সিদ্ধান্তের বাহিরে গিয়ে বিদ্রোহী হলে তাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করা হবে।

আসন ভাগাভাগি নিয়ে মহাজোটে ক্ষোভ রয়েছে কিনা এমন এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন: ‘কিছু ক্ষোভ তো থাকতেই পারে। এত বড় মহাজোট। এখানে তো ক্ষোভ-বিক্ষোভ কিছু হবেই। সেই ক্ষোভ প্রশমিতও আমরা করবো। কিন্তু প্রত্যাহার পর্যন্ত যাদের ধৈর্য্য থাকবে না তাদের জন্য ব্যবস্থা আছে।’

সর্বশেষ সংবাদ