December 15, 2018

সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী নুরুল ইসলাম আর নেই

স্টাফ রিপোর্টার : জামালপুরের প্রবীণ রাজনীতিক, জামালপুর-৪ (সরিষাবাড়ী) আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মাওলানা নুরুল ইসলাম আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)।

বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতায় রাজধানীর এ্যাপোলো হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ রবিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তিনি মারা যান। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে ও তিন মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন, রাজনৈতিক ভক্ত-শুভাকাঙ্ক্ষী ও গুণগ্রাহী রেখে যান। তাঁর মৃত্যুতে পরিবারের স্বজনদের মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। দুপুরে তাঁর মরদেহ উপজেলার পাখিমারা গ্রামে নিয়ে আসা হলে তাকে একনজর দেখতে সবাই ছুটে যান এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

জানা গেছে, আজ রবিবার সকালে ঢাকায় জাতীয় সংসদ ভবন প্রাঙ্গণে তাঁর প্রথম জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। পরে আছর নামাজের পর জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পাখিমারা গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইনজীবী মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন বাদশা ও সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীসহ সর্বস্তরের হাজারো মানুষ তাঁর নামাজে জানাজায় অংশ নেন।

দলীয় ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, সদ্য প্রয়াত মাওলানা নুরুল ইসলাম রাষ্ট্রপতি এরশাদের শাসনামলে প্রথম গঠিত উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে সরিষাবাড়ী থেকে নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগে যোগদানের পর ১৯৯৬ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির তৎকালীন মহাসচিব ও এলজিআরডি মন্ত্রী ব্যারিস্টার আব্দুস সালাম তালকুদারের সাথে নৌকা প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন প্রথম আওয়ামী লীগ সরকারের ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব লাভ করেন। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ও জেলা ফার্টিলাইজার অ্যাসোসিয়েশনের (বিএফএ) সভাপতি ছিলেন।

এদিকে সাবেক ধর্মপ্রতিমন্ত্রী মাওলানা নুরুল ইসলামের মৃত্যুতে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, জামালপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশিদ জোয়ার্দার, জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইজীবী মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, সরিষাবাড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছানোয়ার হোসেন বাদশা, সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ হারুন-অর-রশিদ, সাবেক সংসদ সদস্য চিকিৎসক. মুরাদ হাসান, সরিষাবাড়ী  পৌরসভার মেয়র রুকুনুজ্জামান রোকন, জেলা বিএনপির সভাপতি ও সরিষাবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদুল কবীর তালুকদার শামীমসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ গভীর শোক ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

সর্বশেষ সংবাদ